+৮৮ ০১৬১১৫২৪৮৮৪, +৮৮ ০১৭০৫৪৫৮৮৭৭
 
 

পারিতে স্বাগতম

অসহায়, হতদরিদ্র, নিরন্ন, বয়ঃবৃদ্ধ, সুবিধাবঞ্চিত শিশু,কিশোর-কিশোরী, এবং ছিন্নমূল মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর লক্ষ্যে নিবেদিত সম্পূর্ণ অলাভজনক-সেচ্ছাশ্রমনির্ভর উদ্যোগ পারি ফাউন্ডেশন। ২০১৬ সালের মার্চ থেকে আমরা শুরু করি আনুষ্ঠানিক যাত্রা।

সবার সহযোগিতায় এ পর্যন্ত পারি ফাউন্ডেশন যেসব উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো: নিরন্ন মানুষের মাঝে নিয়মিত খাবার বিতরণ, অনুষ্ঠানের বেঁচে যাওয়া খাবার সংগ্রহ ও বিতরণ, ২ টাকার বিনিময়ে চিকিৎসা সেবা, উদ্বাস্তু মানুষের জন্য সার্বিক-সহায়তা, শীতবস্ত্র বিতরণ, অসহায় মানুষের পুনর্বাসন, প্রাকৃতিক দুর্যোগকালীন সহায়তা, জরুরি মানবিক সহায়তা, পাখির নিরাপদ-নিবাস প্রতিষ্ঠা, রমজানে ইফতার বিতরণ, এবং স্বেচ্ছায় রক্তদান কার্যক্রম।

আমাদের সাধ্য সীমিত, কিন্তু স্বপ্ন অনেক বড়। আমরা স্বপ্ন দেখি যেদিন এদেশের কোনো মানুষ ক্ষুধার্থ অবস্থায় রাত্রিযাপন করবেনা, বিনাচিকিৎসায় কেউ মরবেনা ধুঁকে ধুঁকে, কোনো শিশুকে বেঁচে নিতে হবেনা ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম, অসহায় বয়ঃবৃদ্ধ মানুষের জন্য দেশের প্রতিটি জেলায় তৈরী হবে উন্নত বৃদ্ধাশ্রম, ছিন্নমূল শিশুকিশোরদের জন্য নিশ্চিত হবে পুনর্বাসন। আমরা বিশ্বাস করি, আপনাদের সবার সহযোগিতায়, আমাদের এই স্বপ্ন পূরণ হবে। দল-মত-ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে যেকেউ আমন্ত্রিত আমাদের এই আয়োজনে। আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস: এক হলেই আমরা পারি।

কার্যক্রম সমূহ

নিরন্ন মানুষের মাঝে নিয়মিত খাবার বিতরণ, অনুষ্ঠানের বেঁচে যাওয়া খাবার সংগ্রহ ও বিতরণ, ২ টাকার বিনিময়ে চিকিৎসা সেবা, উদ্বাস্তু মানুষের জন্য সার্বিক-সহায়তা, শীতবস্ত্র বিতরণ, অসহায় মানুষের পুনর্বাসন, প্রাকৃতিক দুর্যোগকালীন সহায়তা, জরুরি মানবিক সহায়তা, পাখির নিরাপদ-নিবাস প্রতিষ্ঠা, রমজানে ইফতার বিতরণ, এবং স্বেচ্ছায় রক্তদান কার্যক্রম।

পারি ফাউন্ডেশন সব সময় চেষ্টা করে সুবিধা বঞ্চিত মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে। পারি'র এই আয়োজনে আপনাদের একটু সহযোগিতা এ কার্যক্রমকে আরো বেগবান করবে। আজ (৩০ আগস্ট) প্রায় ১৮০ জন খেলেন দুপুরের খাবার।

প্রতি শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে ১২.৩০ টা পর্যন্ত বস্তিবাসী; সুবিধা বঞ্চিত শিশু-কিশোর; রিকশা/ভ্যান চালক; গার্মেন্টস কর্মী, গৃহকর্মি; ঝাড়ুদার, দারোয়ান; দিনমজুর, হকার, ভিক্ষুক ও ভাসমান মানুষদের মাত্র ২ টাকায় পারি ফাউন্ডেশন এ সেবা দিয়ে থাকে।

পারি'র সদস্যদের সারা রাতের পরিশ্রমে বিয়ের খাবার খেলো ৩৫০ জন ভাসমান ক্ষুধার্ত মানুষ।

সবাই যখন ঈদের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত, তখনো পারি'র সদস্যরা ব্যস্ত অসহায় মানুষের চিকিৎসা আর খাবার নিয়ে।

আজ প্রায় ১৮০জন অসহায় ক্ষুধার্ত মানুষ খেলো দুপুরের খাবার। পারি'র নিয়মিত খাবার বিতরণের অংশ হিসেবে বিমানবন্দর রেল স্টেশনে খাবারগুলো বিতরণ করা হয়। পারি' সব সময় চেষ্টা করে সুবিধা বঞ্চিত মানুষের অন্ন, বস্ত্র, চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে। পারি'র এই আয়োজনে আপনাদের সহযোগিতাও কামনা করছি। আপনার একটু সহায়তায় ভালো থাকবে অনেক অসহায় দরিদ্র মানুষ।

পড়তে পারেন এক অসহায় বৃদ্ধ বাবার করুন জীবন কাহিনী। আড়াই কোটি টাকা দামের বাড়ী বিক্রি করেও ছেলে বাবাকে রেখে গিয়েছিল রেলস্টেশনে। কিন্তু ‘পারি ফাউন্ডেশন’ স্বযত্নে বুকে টেনে নিয়েছেন অসহায় মিনু মিয়াকে।

 
 

যোগদিন পারি তে

পারি ফাউন্ডেশন উদ্যমী যেকোনো ব্যক্তির জন্য উন্মুক্ত। অসহায়-বঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর সুযোগ সবসময় হয়না; যদি এই ফাউন্ডেশনের একজন গর্বিত সদস্য হিসেবে যোগ দিতে চান আমাদের সাথে, তবে আপনি হতে পারেন “এক-বছর মেয়াদি সদস্য” (প্রতিমাসে মাত্র ২০০ টাকা অনুদান দিয়ে) কিংবা হয়ে যেতে পারেন “আজীবন সদস্য” (এককালীন ২০ হাজার টাকা অনুদান দিয়ে)। দল-মত-ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে যেকেউ হতে পারেন আমাদের সদস্য। সদস্য হতে চাইলে নিচের ফরমটি পূরণ করে ইমেইলে পাঠিয়ে দিন আমাদের –

সদস্য   স্বেচ্ছাসেবি/ ভলান্টিয়ার   রক্তদাতা